শনিবার , ডিসেম্বর ১০ ২০২২
নীড় পাতা / জেলা জুড়ে / লালপুর / লালপুরে প্রধান শিক্ষককের কক্ষে নিষিদ্ধ গাইড বই কক্ষে তালা

লালপুরে প্রধান শিক্ষককের কক্ষে নিষিদ্ধ গাইড বই কক্ষে তালা

নিজস্ব প্রতিবেদক, লালপুরঃ
নাটোরের লালপুর উপজেলার থানা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শরীফা বেগমের কক্ষে বিপুল পরিমান নিষিদ্ধ গাইড বই পাওয়ায় ঐ কক্ষে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি । প্রধান শিক্ষাককের কক্ষে লেকচার প্রকাশনীর ২৪০ টি গাইড বই পাওয়া যায় । সে সময় প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ে উপস্থিত না থাকায় তার কক্ষে তালা ঝুলিয়ে দেন পরিচালনা কমিটির সভাপতি হায়দার আলী । জানা যায়, ৫ জানুয়ারী রবিবার দুপুরের পরে এ ঘটনা ঘটে ।

নতুন বছরের প্রথম দিন থেকেই প্রধান শিক্ষক শরীফা বেগম নিজে ও সহকারী শিক্ষকদের মাধ্যমে বিভিন্ন শ্রেণীতে গিয়ে লেকচার পবলিকেশন্সের গাইড বই কিনতে শিক্ষার্থীদের চাপ দিতে থাকে । তারা গাইড বই কিনতে অপারগতা প্রকাশ করলে শিক্ষকরা বিরুপ আচরণ করে । এক পর্যায়ে বাধ্যতামূলক ভাবে সহকারী শিক্ষদের মাধ্যমে প্রধান শিক্ষক ঐ প্রকাশনীর বই কেনার জন্য চাপ দিলে শিক্ষার্থীরা তাদের অভিভাবকদের জানায় ।

অভিভাবকরা বিষয়টি বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতিকে অবহিত করেন । পরে ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ে রবিবার বিদ্যালয়ে আসেন সভাপতি । গাইড কিনতে বাধ্য করার বিষয়ে কথা বলতে প্রধান শিক্ষকের কক্ষে গেলে ঐ প্রকাশনীর ২৪০ টি বই স্তুপ আকারে দেখতে পাই । এসময় প্রধান শিক্ষককে তার কক্ষে না পেয়ে তালা ঝুলিয়ে দেন ।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয় পরিচলানা কমিটির সভাপতি হায়দার আলী বলেন, প্রধান শিক্ষক বছরের শুরুতেই একটি গাইড বই প্রকাশনীর সাথে চুক্তি করে বিদ্যালয়েই গাইড বই বিক্রয় শুরু করেছেন । শিক্ষার্থীদের গাইড কিনতে বাধ্য করার অভিযোগের সত্যতা পেয়েছি । প্রধান শিক্ষকের কক্ষে গাইডের স্তপ দেখে তালা লাগিয়ে দিয়েছি । সরকার বছরের প্রথম দিন শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে বই দিয়ে যে সুনাম অর্জন করেছে, শিক্ষকরুপী গাইড কোম্পানীর প্রতিনিধিরা সেখানে ব্যবসা আরম্ভ করেছে ।

এবিষয়ে থানা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শরীফা বেগম বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, পারিবারিক অনুষ্ঠানের কারণে ছুটিতে থাকায় তিনি গাইড বই সর্ম্পকে কিছু জানেন না । তবে উপজেলা শিক্ষক সমিতির নেতারা তার কক্ষ ব্যবহার করে থাকতে পারেন । গাইড কিনতে শিক্ষার্থীদের বাধ্য করার অভিযোগটিও সঠিক নই ।

এবিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি হযরত আলী গাইডগুলো নিজেদের দাবী করে বলেন, বছরের শুরুতে বিভিন্ন গাইড কোম্পানীর প্রতিনিধিরা শিক্ষদের জন্য বই দেয় । সমিতির নিজস্ব কার্যালয় না থাকায় উপজেলা সমিতির জন্য বরাদ্দ গাইডগুলো ঐ বিদ্যালয়ে রাখা ছিলো ।

এবিষয়ে লালপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার উম্মুল বানীন দ্যূতি বলেন, বিষয়টি শুনেছি । তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে ।
এব্যাপারে জেলা শিক্ষা অফিসার রমজান আলী আকন্দ বলেন, সরকার গাইড বই নিষদ্ধ করেছে ।

সেই নিষিদ্ধ গাইড বই কেনো প্রধান শিক্ষকের কক্ষে রাখা হলো । বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে ।

আরও দেখুন

লালপুরে আন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী দিবস পালন

নিজস্ব প্রতিবেদক, লালপুর: নাটোরের লালপুরে আন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী দিবস পালন করেছে উপজেলা দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি। …