নীড় পাতা / আইন-আদালত / বড়াইগ্রামে একই স্থানে আ’লীগের দু’পক্ষের সভা আহ্বান, ১৪৪ ধারা জারি, এক পক্ষের অন্যত্র সভা

বড়াইগ্রামে একই স্থানে আ’লীগের দু’পক্ষের সভা আহ্বান, ১৪৪ ধারা জারি, এক পক্ষের অন্যত্র সভা

নিজস্ব প্রতিবেদক, বড়াইগ্রামঃ
নাটোরের বড়াইগ্রামে একই স্থানে আওয়ামী লীগের উপজেলা চেয়ারম্যান, পাটোয়ারী পক্ষ এবং এমপি কুদ্দুস পক্ষ পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দেয়ায় সংঘর্ষের আশঙ্কায় ১৪৪ ধারা জারি করেছে উপজেলা প্রশাসন। সোমবার দুপুর দুইটার পর থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত উপজেলার মাঝগাঁও ইউনিয়নের বাহিমালী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠসহ পার্শ্ববর্তী এলাকায় সকল প্রকার সভা-সমাবেশের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন ইউএনও আনোয়ার পারভেজ। তবে পরে উপজেলা চেয়ারম্যান সমর্থিত পক্ষ স্থান পরিবর্তন করে বনপাড়া এলাকার একটি স্কুল মাঠে সভা করেছে।

জানা যায়, সোমবার বিকালে বাহিমালি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য সম্পাদক ডা. সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারীকে প্রধান অতিথি করে মাঝগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের উদ্যোগ নেয়। সে অনুযায়ী তারা প্রচার প্রচারণা চালায়। অপর দিকে, একই স্থানে একই সময়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুস এমপিকে প্রধান অতিথি করে অপর পক্ষ নব-নির্বাচিত ওয়ার্ড কমিটির পরিচিতি সভা ডেকে এলাকায় মাইকিং করে। উভয় পক্ষ একই জায়গায় পাল্টাপাল্টি সভা আহ্বান করায় দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে উপজেলা প্রশাসন সেখানে ১৪৪ ধারা জারী করে সব রকম সভা সমাবেশ নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন।

তবে উপজেলা চেয়ারম্যান সমর্থিত গ্রুপ বিকল্প জায়গা বনপাড়া পাটোয়ারী কোয়ালিটি এডুকেয়ার ইনস্টিটিউট চত্ত্বরে ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন করেছে। সেখানে উপজেলা চেয়ারম্যান ডা. সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রফিকুল বারী রফিক, মাঝগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি খোকন মোল্লা, উপজেলা যুবলীগের যুগ্ন আহ্বায়ক জেলা পরিষদ সদস্য আবুল কালাম জোয়াদ্দারসহ নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

১৪৪ ধারা জারী প্রসঙ্গে মাঝগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান খোকন মোল্লা বলেন, আমরা আগে থেকে সভা আহ্বান করে প্রশাসনকে জানানোসহ এলাকায় প্রচারণা চালিয়েছি। কিন্তু এমপি সমর্থিত গ্রুপ আমাদের সভা বানচাল করতে পাল্টা প্রোগ্রাম ডেকে প্রশাসনকে দিয়ে পরিকল্পিতভাবে ১৪৪ ধারা জারী করিয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস মিয়াজী জানান, দলীয় শৃঙ্খলা ভেঙ্গে উপজেলা ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি-সম্পাদকের অনুমতি ছাড়া সেখানে উপজেলা চেয়ারম্যান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন ডেকেছে যা দলীয় গঠণতন্ত্র ও শৃঙ্খলা পরিপস্থি। তবে আমরা আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে সভা করিনি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আনোয়ার পারভেজ বলেন, একই মাঠে দুই পক্ষ সভা ডাকায় আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি অবনতির আশঙ্কায় রাত ১২টা পর্যন্ত সকল সভা-সমাবেশ বন্ধ করে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সতর্ক দৃষ্টি রাখতে বলা হয়েছে।

আরও দেখুন

গম রপ্তানিতে ভারতের নিষেধাজ্ঞা বাংলাদেশের জন্য নয়

নিউজ ডেস্ক:‘এটি স্পষ্ট করা হচ্ছে যে ভারত থেকে গমের বাণিজ্যিক রপ্তানির উপর বিধিনিষেধ আরোপ করা …