রবিবার , জানুয়ারি ১৬ ২০২২
নীড় পাতা / সাহিত্য ও সংস্কৃতি / কবিতা / বিলকিস বেগমের কবিতা ‘লকডাউন বিভ্রাট’

বিলকিস বেগমের কবিতা ‘লকডাউন বিভ্রাট’

কবিঃ বিলকিস বেগম

কবিতাঃ লকডাউন বিভ্রাট

শুনলাম একটা দারুন খবর
বলছি কানে কানে –
চুপটি করে শোনো শুধু, কেউ যেন না জানে !
লকডাউনে জামাই-বউদের বাড়ছে নাকি প্রেম
বন্দীদশায় গড়ছে দুজন ভালবাসার ফ্রেম ?
ঝগড়া-ঝাটির নেইকো বালাই করছে শুধুই মিল
শুনেই আমি বরের সাথে করে ফেলেছি ডিল ।
নতুন করে প্রেম- পিরিতি ঝালাই করা ভাল
বহুদিনের অভিমানে পড়েছে জমাট কালো ।
বিয়ের পরে ঘটা করে বলেছি কি দু’টো কথা ?
চাকরী করি ক্যারিয়ার দেখি, অত সময় কোথা ?
পয়সা আমি যতই কামাই , যতই করি সাজ
নিয়ম হলো, মেয়েমানুষ করবে ঘরের কাজ ।
ছেলে মানুষ বীর পুরুষ! বাহিরমুখী বেশি
আড্ডা দিবে, সিগারেট খাবে, করবে যেটা খুশি ।
পেয়েছি এবার হাতের মুঠোয়, লকডাউনে ঘরে
স্বামী নামক জিনিসটা আর কোথায় যাবে দূরে !
বুঝবে এবার পতিদেবতা ! কাকে বলে ডিল-
লকডাউনেই করবো জেনো ষোলকলা ফুলফিল !
এখন আমি বেজায় খুশি, থাকছে স্বামী ঘরে
ঝাড়ু দেয়া, কাপড় ধোয়া শিখছে একটু করে !!
শান্তিমতো দেখবো এবার দিদি নাম্বার ওয়ান
টিভির সিরিয়াল সব দেখবো আর সিনেমার গান !
আজকে সাহেব মাছ রেঁধেছে কি যে মজার টেষ্ট !
ভালবেসে বলেছি তাই , তোমার রান্নাই বেষ্ট !
আমার আবার রুচির ব্যামো, নাক সিটকানো রোগ
যেমন-তেমন খাইনা বাপু , যতই ভাল হোক ।
মাছ- মাংস ধুইনা আমি , গন্ধ নাকে লাগে!
তাই সে ওসব একাই করে , রান্না শুরুর আগে ।
পিঁয়াজের যে বেজায় ঝাঁঝ,কাটতে কি আর পারি?
একটা কেটেই কাঁদতে থাকি ,বলি তখন ‘সরি’ ।
লোকটা আমার খুবই ভালো, দয়ায় ভরা মন
বলে, তুমি বসো গিয়ে, রেষ্ট নাও কিছুক্ষণ ।
তরি-তরকারি কেটে-কুটে সে রান্না চাপায় গিয়ে
আমি তখন মনের সুখে মোবাইল টিপি শুয়ে ।
গোসল করা কাপড় ধোয়া সব যখন সারা
ওর তখন একটাই কাজ ,টেবিলে ভাত বাড়া ।
খেয়ে-দেয়ে নাক ডাকিয়ে দেই যে একটা ঘুম
কাজ শেষে কর্তা এসে কপালে দেয় চুম ।
যে যাই বলো ! স্বামী-স্ত্রীর শেয়ারিং টাই মূল
এতদিনের মিশনটা আমার হয়েছে সাকসেসফুল।।

আরও দেখুন

কবি নাজনীন নাহারে’র কবিতা ”ইচ্ছে ছিলো”

ইচ্ছে ছিল আমারও খুব ইচ্ছে ছিল; ইচ্ছে ছিল খুবটি করে চুটিয়ে পাটিয়ে প্রেমটি করব। আমার …