বুধবার , জানুয়ারি ১৯ ২০২২
নীড় পাতা / জেলা জুড়ে / বাগাতিপাড়ায় আবারও অসুস্থ গরুর মাংস বিক্রির অভিযোগ

বাগাতিপাড়ায় আবারও অসুস্থ গরুর মাংস বিক্রির অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাগাতিপাড়াঃ
নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলায় আবারও অসুস্থ গরুর মাংস বিক্রি করার অভিযোগ উঠেছে আল আমিন নামে একজনের ব্যবসীর বিরুদ্ধে। আজ মঙ্গলবার (১২মে) সন্ধ্যায় ঘটনাটি ঘটেছে বাগাতিপাড়া ইউনিয়নের জিগরী গ্রামে। গবাদি পশুটি অসুস্থ থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. এবিএম আলমগীর।

স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার জিগরী গ্রামের আলাউদ্দিনের ছেলে ভুষিমাল ব্যবসায়ী আল আমিনের একটি গরু বেশ কিছুদিন থেকেই অসুস্থ ছিলো। স্থানীয় পশু চিকিৎসক গরুটিকে উচ্চমাত্রার অ্যান্টিবায়োটিক প্রয়োগ করে। গরুর মালিক আলামিন জেনেশুনেই এমন গরু জবাই করে এলাকায় প্রতি কেজি মাংস ৩’শ টাকা করে বিক্রি করে। অথচ বিধিনিষেধ রয়েছে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা মনোনীত ডাক্তারের পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়া কোন পশু জবাই বা মাংস বিক্রি করা যাবে না।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে সকলেই যখন জনসচেতনতায় ব্যস্ত, এসময় অসুস্থ গরু জবাই করে বিক্রি করাটাকে বড় ধরনের অপরাধ বলেই মনে করছেন স্থানীয়রা। এ ঘটনাটি স্থানীয়রা উপজেলা প্রশাসনকে জানালে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তাকে মাংস পরীক্ষার দায়িত্ব দেওয়া হয়।

গরুটি অসুস্থ থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. এবিএম আলমগীর বলেন, কোন পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াই গরুটি অসুস্থ অবস্থাতেই জবাই করা হয়েছে এটা নিশ্চিত। আমার দপ্তরের দু’জন ডাক্তার রাতেই ঘটনাস্থলে গিয়েছেন। কিন্তু ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহোদয় ওই অসুস্থ গরুর আংশিক মাংস জব্দ করা হয়েছে দাবি করলেও সরোজমিনে গিয়ে তা পাওয়া যায়নি। তিনি আরো জানান পশুকে উচ্চমাত্রার অ্যান্টিবায়োটিক প্রয়োগ করার কমপক্ষে ৩০দিনের মধ্যে মাংস খাওয়া মানব মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর।

এ ব্যাপারে বাগাতিপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রিয়াংকা দেবী পাল বলেন, ঘটনাটি আমি জানি। প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তার বিবৃতি পেলে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে। বারংবার এমন ঘটনা ঘটনায় উদ্বেগ জানিয়েছেন ভোক্তার অধিকার নিয়ে কাজ করা সংগঠন কনজুমারস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ ক্যাব এর বাগাতিপাড়া উপজেলা কমিটির সেক্রেটারি আরিফুল ইসলাম তপু। তিনি বলেন, বিষয়টি খুব হতাশা জনক। এরূপ ঘটনা উপজেলাতে আগেও ঘটেছে। সরকারি বিধি-নিষেধ অমান্য করে ক্রেতার জীবন বিপন্ন হতে পারে এমন কোন কাজ করা অপরাধ। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন, ২০০৯ এ স্পষ্ট দন্ডের বিধান থাকলেও তার প্রয়োগ না হওয়ায় একই অপরাধ বারবার হচ্ছে। অপরাধীরা ভয় না পেয়ে উৎসাহ পাচ্ছে। তাই এ সকল অপরাধকে ছোট করে না দেখে সংশ্লিষ্টদের আইনের যথাযথ বাস্তবায়ন করা উচিৎ বলে মনে করেন তিনি।

আরও দেখুন

বড়াইগ্রামে মাদকের টাকার জন্য বৃদ্ধা মা ও স্ত্রীকে নির্যাতন- বখাটে আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক, বড়াইগ্রাম:নাটোরের বড়াইগ্রামে মাদক সেবনের জন্য টাকা না দেয়ায় বৃদ্ধা মা ও স্ত্রীকে বেধড়ক …