নীড় পাতা / আইন-আদালত / নাটোরে স্কুল সভাপতি চাকু নিয়ে শাসালেন শিক্ষককে!

নাটোরে স্কুল সভাপতি চাকু নিয়ে শাসালেন শিক্ষককে!

নিজস্ব প্রতিবেদক,গুরুদাসপুর: ছেলের পরীক্ষা খারাপ হয়েছে, এই অজুহাতে লঙ্কাকান্ড ঘটিয়েছেন এক স্কুল কমিটির সভাপতি। শুধু গালাগাল দিয়েই ক্ষান্ত হননি তিনি। চাকু নিয়ে চোখ রাঙ্গিয়েছেন প্রধান শিক্ষকের প্রতিও। ঘটনাটি ঘটেছে নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার নারায়ণপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। রবিবার সকালে এই ঘটনা ঘটে। এতে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক নাজমা খাতুন জানান, স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি বেনজির আহম্মেদ হঠাৎ করেই উত্তেজিত হয়ে বিদ্যালয়ে আসেন। তারপর দ্বিতীয় শ্রেণিতে অধ্যায়ররত তার ছেলের গণিত পরিক্ষা খারাপ হওয়ার কারণে শিক্ষকদের গালাগাল দিতে থাকেন। এসময় সহকারী শিক্ষক বিপ্লব রানা তাকে উত্তেজিত না হওয়ার অনুরোধ জানালে তিনি ঐ শিক্ষককে ধাক্কা দিয়ে চেয়ার উঁচিয়ে আঘাত করার চেষ্টা করেন। তাকে থামাতে আরেক শিক্ষক জিয়াউল হক এগিয়ে এলে তাঁকেও ধাক্কা দিয়ে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করতে থাকেন। এসময় প্রধান শিক্ষক এগিয়ে এলে তাঁকেও গালমন্দ করেন তিনি। একই সঙ্গে তাঁর ছেলের পরীক্ষা খারাপ হওয়ার ব্যাখ্যা জানতে চান। একসময় টেবিলে থাকা চাকু হাতে নিয়ে প্রধান শিক্ষককে ভয় দেখান স্কুল কমিটির সভাপতি বেনজির আহম্মেদ। শিক্ষক জিয়াউল হক ও বিপ্লব রানা অভিযোগ করে বলেন, শনিবার এমসিকিউর মাধ্যমে গণিত বিষয়ক বার্ষিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। সেই পরীক্ষায় ছেলের খারাপের অজুহাতে সভাপতি শিক্ষকদের সাথে সন্ত্রাসী আচরণ করেছে। চরম ধৃষ্টতা দেখিয়েছেন। দীর্ঘদিন ধরেই বেনজির আহম্মেদ সব শিক্ষকের সঙ্গে নানা কারণে খারাপ আচরণ করছেন। আজকের ঘটনাটি শিক্ষকদের জন্য অপমানের। এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন তারা। সকল অভিযোগ অস্বীকার করে স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি বেনজির আহম্মেদ বলেন, শনিবার পরীক্ষা দেবার সময় শিক্ষক বিপ্লব রানা আমার ছেলেকে মারধর করে। এজন্য আমার ছেলের পরীক্ষা খারাপ হয়েছে। এর কারণ জানতে গিয়ে শিক্ষকদের সঙ্গে তর্কবিতর্ক হয়েছে। এর বেশী কিছু হয়নি। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম জানান, শিক্ষকরা লিখিত আবেদন করলে তিনি বিষয়টি সম্পর্কে অবগত হন। শিক্ষকদের সাথে এমন আচরণ কিছুতেই কাম্য নয়, বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করে বিধি অনুসারে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও দেখুন

রাণীনগরে গত চার দিনেও ঝরে ক্ষতিগ্রস্থ্য ৭৮ পরিবারের পাশে দ্বাড়য়নি কেউ!

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাণীনগর: নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার পারইল ইউনিয়নের তিনটি গ্রামে ঝরে ক্ষতিগ্রস্থ্য ৭৮ পরিবারের পাশে এখনো …

Leave a Reply

Your email address will not be published.