নীড় পাতা / মুক্ত মত / নাটোরের কোচিং যন্ত্রনা

নাটোরের কোচিং যন্ত্রনা

রেজাউল খান

নাটোর শহরে কোচিং সেন্টারের ছড়াছড়ি। একই মহল্লায় চলছে একাধিক কোচিং সেন্টার। নীতিমালা না মেনেই চলছে এইসব প্রতিষ্ঠান। শিক্ষার্থী, অভিভাবক, পথচারী, যানবাহন প্রভৃতির ভিড় আর চিৎকারে মহল্লাবাসী অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। এই অবস্থা চলে ভোর থেকে রাত পর্যন্ত। জেলা প্রশাসকের কাছে পাঠানো এক অভিযোগপত্রে শহরের আলাইপুর মহল্লাবাসী জানায়, তাদের পাড়ায় স্কাইলার্ক লার্ণিং সেন্টার, লিটনের কোচিং, ফ্রেন্ডস কোচিং ও মেধা কোচিং সেন্টারের নামে বাড়ি ভাড়া নিয়ে কতিপয় ব্যক্তি শিক্ষা বাণিজ্য শুরু করেছে।

জেলা প্রশাসক অভিযোগটি আমলে নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে নির্দেশ দেন। নির্দেশ পেয়ে নির্বাহী অফিসার জাহাঙ্গীর আলম সম্প্রতি পুলিশসহ কোচিং সেন্টার বন্ধের জন্য শহরে এক অভিযান পরিচালনা করেন। এসময় তিনি শিক্ষার্থীদের পাঠরত অবস্থায় দেখতে পেয়ে প্রমিজ কোচিং সেন্টার থেকে ২ জন ও ফ্রেন্ডস কোচিং সেন্টার থেকে ৩ জনকে আটকের নির্দেশ দেন। তাদেরকে পুলিশ হেফাজতে রাখার পর সতর্ক করে সন্ধ্যায় ছেড়ে দেওয়া হয়।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নীতিমালায় বলা হয়েছে, কোন শিক্ষক তাঁর নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীকে কোচিং করাতে পারবেন না। কিন্তু প্রতিষ্ঠানের প্রধানের অনুমতি নিয়ে অন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীকে পড়াতে পারবেন। কিন্তু এই সংখ্যা দৈনিক ১০ জনের বেশি হতে পারবে না।

নীতিমালায় আরও বলা আছে, অভিভাবকদের আগ্রহের প্রেক্ষিতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান অতিরিক্ত ক্লাসের ব্যবস্থা করতে পারবেন। এক্ষেত্রে প্রতি বিষয়ে মেট্রোপলিটন এলাকায় মাসিক সর্বোচ্চ ৩০০ টাকা এবং জেলা শহরে ২০০ টাকা রশিদের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ফি আদায় করা যাবে।

রেজাউল খানঃ সিনিয়র সাংবাদিক, কলামিস্ট

আরও দেখুন

প্রেমের ফাঁদে ফেলে শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগ রাবি ছাত্রদলের সদস্যের বিরুদ্ধে

বিশেষ প্রতিবেদক: প্রেমের ফাঁদে ফেলে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগ রাবি ছাত্রদলের সদস্য ইমন ও …