বৃহস্পতিবার , ডিসেম্বর ১ ২০২২
নীড় পাতা / অর্থনীতি / জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ৭.৫ মূল্যস্ফীতি ৫.৬ শতাংশ

জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ৭.৫ মূল্যস্ফীতি ৫.৬ শতাংশ

নিউজ ডেস্ক:
প্রস্তাবিত ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটে মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা সাড়ে ৭ শতাংশ এবং মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৬ শতাংশ ধরা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বাজেট প্রস্তাবনায় এই লক্ষ্যমাত্র নির্ধারণের কথা জানান। ‘কোভিডের অভিঘাত পেরিয়ে উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় প্রত্যাবর্তন’ প্রতিপাদ্য নিয়ে ৬ লাখ ৭৮ হাজার কোটি টাকার জাতীয় বাজেট ঘোষণা করেন তিনি।

উন্নয়নের পাশাপাশি অর্থনীতি নিয়ন্ত্রণের প্রত্যাশা নিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ৫ শতাংশ, আর মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৬ শতাংশ রাখার প্রস্তাব করছি’।

মুস্তফা কামাল বলেন, চলতি অর্থবছর শেষে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ২৫ শতাংশ অর্জিত হবে বলে আশা করা যায়।

পাশাপাশি কোভিড-১৯ অতিমারির প্রলম্বিত প্রভাব, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ ইত্যাদি বিবেচনায় নিয়ে আগামী ২০২২-২৩ অর্থবছরে প্রবৃদ্ধির হার ৭ দশমিক ৫ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, আগামী অর্থবছরে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে সরকারের মূল কৌশল হবে বিদ্যমান চাহিদার প্রবৃদ্ধি কমিয়ে সরবরাহ বাড়ানো। আগামী ২০২২-২৩ অর্থবছরে মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৬ শতাংশ হবে মর্মে আশা করছি। এর আগের বছর ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটে মোট জিডিপি প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছিল ৭ দশমিক ২ শতাংশ। আর মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৩ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়েছিল।

২০২২-২৩ সালের প্রস্তাবিত বাজেটের আকার চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের তুলনায় ৭৪ হাজার ৩৮৩ কোটি টাকা বেশি। আর সংশোধিত বাজেটের তুলনায় ৮৪ হাজার ৫৬৪ কোটি টাকা বেশি। নতুন বাজেটে সরকারের আয়ের সম্ভাব্য লক্ষ্যমাত্রা হতে যাচ্ছে ৪ লাখ ৩৬ হাজার ২৭১ কোটি টাকা। অনুদান ছাড়া ঘাটতি ধরা হয়েছে ২ লাখ ৪৫ হাজার ৬৪ কোটি টাকা। আর অনুদানসহ ঘাটতি ২ লাখ ৪১ হাজার ৭৯৩ কোটি টাকা।

আয়ের লক্ষ্যমাত্রা চলতি ২০২১-২০২২ অর্থবছরের তুলনায় ৪৪ হাজার ৭৯ কোটি টাকা বেশি। কর বাবদ ৩ লাখ ৮৮ হাজার কোটি টাকা আয় করার পরিকল্পনা করছে সরকার। এর মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) মাধ্যমে কর আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৩ লাখ ৭০ হাজার কোটি টাকা। নতুন অর্থবছরে এনবিআরকে আগের বছরের তুলনায় ৪০ হাজার কোটি টাকা বেশি রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা দিচ্ছে সরকার।

এনবিআর বহির্ভূত কর থেকে আয় করার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১৮ হাজার কোটি টাকা। আর কর ছাড়া আয় ধরা হয়েছে ৪৫ হাজার কোটি টাকা। বৈদেশিক অনুদান থেকে আয় ধরা হয়েছে ৩ হাজার ২৭১ কোটি টাকা।

আরও দেখুন

আত্রাইয়ে ৬ বছরের শিশু ধর্ষন,থানায় মামলা দায়ের

নিজস্ব প্রতিবেদক,রাণীনগরঃ নওগাঁর আত্রাইয়ে ৬বছর বয়সি এক কন্যা শিশুকে ধর্ষনের অভিযোগে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। …