মঙ্গলবার , ডিসেম্বর ৬ ২০২২
নীড় পাতা / জেলা জুড়ে / এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় মেধা তালিকায় ১০ম সিংড়ার আন্নি

এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় মেধা তালিকায় ১০ম সিংড়ার আন্নি

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিংড়াঃ
২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে মেডিকেল কলেজের এমবিবিএস কোর্সের প্রথম বর্ষে ভর্তি পরীক্ষার ফলাফলে জাতীয় মেধা তালিকায় দশম স্থান অর্জন করেছেন মোছাঃখাইরুন নাহার আন্নি । খাইরুন নাহার আন্নি সিংড়া দমদমা পাইলট স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থী। প্রকাশিত ফলাফলে জাতীয় মেধা তালিকায় দশম হওয়ার গৌরব অর্জন করেন আন্নি। আন্নির বাবা কাজী মাওলানা মোঃ আলাউদ্দিন মুসলিম ধর্মের বিবাহ ও তালাক সরকারী ভাবে রেজিস্টার করেন। নাটোর জেলার সিংড়া উপজেলার পৌরসভার এলাকার পাটকোল মহল্লায় বসবাস করেন তারা। আন্নির মা খাদিজা বেগম গৃহিণী। দুই ভাই-বোনের মধ্যে আন্নি ছোট। আন্নির বড় ভাই রাজশাহী প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (রুয়েট) থেকে লেখাপড়া শেষ করেছেন। মেডিকেল কলেজের এমবিবিএস কোর্সে দশম হওয়ার অনুভূতি জানিয়ে খাইরুন নাহার আন্নি বলেন, এর চেয়ে বড় খুশির সংবাদ আর কিছুই হতে পারে না। আমি ভালো ডাক্তার হওয়ার আগে ভালো মানুষ হতে চাই। সেজন্য সবার দোয়া চাই। সরকারি ও বেসরকারি মিলিয়ে সাড়ে ১০ হাজারেরও বেশি আসনের বিপরীতে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন ৪৯ হাজার ৪১৩ জন। মঙ্গলবার বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ এ ফলাফল ঘোষণা করেন। তিনি এলাকার অন্যতম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কতুয়াবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে জিপিএ -৫ পেয়ে এসএসসি ও সিংড়া দমদমা পাইলট স্কুল এন্ড কলেজ থেকে জিপিএ – ৫ পেয়ে এইচএসসি পাশ করেন। এছাড়াও তিনি জে এস সি ও পি এস সি পরীক্ষায় জিপিএ- ৫ সহ বৃত্তি লাভ করেন। অনুভূতি জানাতে গিয়ে খাইরুন নাহার বলেন, ফলাফল পেয়ে ভীষণ খুশি আমি। এমন ফলাফলের পেছনে মা-বাবাসহ শিক্ষকদের অবদান সবচেয়ে বেশি। ভবিষ্যতে চিকিৎসক হয়ে মানবতার সেবায় নিজেকে সম্পৃক্ত করতে চাই। এ বছর এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় ৪৯ হাজার ৪১৩ জন পাস করে। পাসকৃতদের হার অনুযায়ী ছাত্র ৪৬ দশমিক ৩১ শতাংশ ও ছাত্রী ৫৩ দশমিক ৬৯ শতাংশ। পাস করা শিক্ষার্থীদের মধ্যে সরকারিতে নেয়া হবে ৪ হাজার ৬৮ জন আর বেসরকারিতে নেয়া হবে ৬ হাজার ৩৩৯ জন।

আরও দেখুন

কক্সবাজারে প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় ব্যাপক জনসমাগমের প্রস্তুতি

নিউজ ডেস্ক: কক্সবাজারে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনার ৭ডিসেম্বর জনসভাকে কেন্দ্র করে প্রচারণা এখন …