নীড় পাতা / আন্তর্জাতিক / আন্তর্জাতিক সংকট : আমাজানের আদিবাসীরা ঢাকা পড়ছে দাবানলের ধোঁয়ায়

আন্তর্জাতিক সংকট : আমাজানের আদিবাসীরা ঢাকা পড়ছে দাবানলের ধোঁয়ায়

তুষার রায়

আন্তর্জাতিক সংকট :
আমাজানের আদিবাসীরা ঢাকা পড়ছে দাবানলের ধোঁয়ায়

আগুনের ছোঁয়ায় আচ্ছন্ন ব্রাজিলের “সাও পাওলো” সত্যই মর্মাহত এবং গভীরভাবে উদ্বিগ্ন বিশ্ববাসী। বৈশ্বিক জলবায়ু সংকটের মধ্যে অক্সিজেন ও জীববৈচিত্র্যের এমন বৃহৎ একটি উৎস আর ফিরিয়ে আনা মানবজাতির পক্ষে সম্ভব নাও হতে পারে।

মানবিক বিপর্যয় দিয়ে অনেক সংলাপ বক্তব্য ও নীতিমালা জাতিসংঘ থেকে শুরু করে ব্যক্তি পর্যায়েও হয়েছে।

যেখানে যুদ্ধ বিধ্বস্ত জনপদ, প্রাকৃতিক দুর্যোগে বিপর্যস্ত এলাকা, বন ও প্রকৃতি রক্ষা, বৈরী অবরোধ নিষ্পেষিত জনগোষ্ঠী ও চিকিৎসা বঞ্চিত মানুষকেও তাদের দুর্ভোগকে মানবিক বিপর্যয় বলে অভিহিত করা হয়েছে। তেমনি “আমাজন বন” এর সমসমায়িক ঘটনা এক প্রাকৃতিক বিপর্যয় হিসাবে ও আখ্যায়িত করা যেতে পারে।

ব্রাজিলের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা National Institute for space research, Brazil (INPE) এর গবেষকরা বলেছেন দাবানলে প্রতি মিনিটে “Amazon” এর প্রায় ১০,০০০ বর্গমিটার এলাকা আগুনে পুড়ে যাচ্ছে। যা একটি ফুটবল মাঠের প্রায় দ্বিগুণ এর সমান। INPE (ইনপে) গবেষণা সংস্থা আরও বলেছে চলতি বছরে এখন পর্যন্ত আমাজনের ব্রাজিলের অংশ ৭২ হাজার ৮৪৩টি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে।

বিশ্বের মানবাধিকার গোষ্ঠী ও পরিবেশ সংস্থার দৃষ্টি “আমাজন” এর দিকে, কী ঘটতে চলছে! পৃথিবীতে যতটুকু অক্সিজেন তার ২০ শতাংশ আসে আমাজন বন থেকে। যে কারণে এটাকে পৃথিবীর ফুসফুস বলা হয়।

“আমাজন” কথাটির অর্থ নারী যোদ্ধা। আর এই যোদ্ধা প্রকৃতি মায়ের কোলের সন্তান হলো মুরা জাতিসত্বার মানুষ। অর্থাৎ আমাজনের গহীন অরন্যে অন্ততঃ ১৮ হাজারেরও বেশি এই আদিবাসী জাতিসত্বার আস্তানা।

আদিবাসীদের তথ্যমতে মুরা বা মুণ্ডা যার অর্থ গাছের শিকড়। মুণ্ডা’রা প্রকৃতির সাথে যুদ্ধ করেই বনে যুগের পর যুগ বসবাস করে। বাংলাদেশেও সুন্দরবন অঞ্চলে মুণ্ডাদের বসবাস। তাদের ১০০ বছর বসবাসের ইতিহাসও রয়েছে।

“Amazon forest could vanish fast” বিবিসি’র তথ্যমতে আমাজন বনে তিন শতাধিক এর বেশি আদিবাসী বাস করে। তার মধ্যে বেশির ভাগ ব্রাজিলীয়। তারা পর্তুগীজ, স্প্যানিশ ইত্যাদি ভাষায় কথা বলে।

এছাড়া “আমাজন” এর আদিবাসী জাতিসত্ত¡ার মানুষের নিজস্ব ভাষা রয়েছে।
Survival International এর তথ্যসূত্রে আমাজন রাষ্ট্রের অনুপস্থিতিতে নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষার বিষয়টি নিজেরাই দেখছে আদিবাসী গোষ্ঠী।

তেমনি “আমাজন” বনে ৩০০ শত আদিবাসী জাতিসত্বার মধ্যে মুরা একটি। মুরা জাতিসত্বার মানুষ “আমাজন” এর বর্তমান প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে মোটেই আতœসমর্পন করতে রাজি নন।

ইউরোপীয় কমিশনের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়, ব্রাজিলের বনাঞ্চলে যে আগুন জ্বলছে তা গভীর উদ্বেগজনক। বনাঞ্চল আমাদের ফুসফুস এবং জীবন রক্ষার ব্যবস্থা করে।

গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস। তিনি বৈশ্বিক জলবায়ুর সঙ্কটের মধ্যে আমরা অক্সিজেন ও জীববৈচিত্রের অন্যতম প্রধান উৎসের এমন ক্ষতি মেনে নিতে পারি না। আমাজানকে অবশ্যই রক্ষা করতে হবে।

ফুটবল তারকা ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো তার টুইটারে লিখেন- “আমাজন বন পৃথিবীতে ২০ শতাংশের বেশি অক্সিজেন সরবরাহ করে। কিন্তু এটা গত তিন সপ্তাহ ধরে জ্বলছে। আমাদের দায়িত্ব এটাকে সাহায্য করা।”

উল্লেখ্য “আমাজন” এর আগুনের ছোঁয়ায় ভিটেমাটি ছাড়া এই মুরা জাতিসত্বার মানুষ। যদিও ব্রাজিলের সরকার এখনও পর্যন্ত খুব একটা সাফল্য পায়নি আগুন নেভানোর কাজে।

স্থানীয় আদিবাসীদের অন্যতম জীবিকা বাদাম চাষ এখন আগুনের রোষে পুড়ছে। তাই মুরা’রা জীবনের শেষ রক্তবিন্দু পর্যন্ত আগুনের বিরুদ্ধে লড়ে যাওয়ার অঙ্গীকার নিয়েছে- তথ্য : EXCLUSIVE ADHIRATH.COM

আদিবাসী সম্প্রদায়ের লোকেরা বলছেন “বন ধোঁয়ায় ঢাকা পড়েছে। আকাশ অন্ধকার হয়ে গেছে। ধোঁয়ার ঝাঁজে আমাদের চোখে লাগছে। অন্য যে কোন সময়ের চেয়ে অনেক বেশি বন্যপ্রাণী এখন লোকালয়ে দেখা যাচ্ছে।

১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮ বিবিসি’র তথ্যসূত্রে- ভারতের নাগাল্যান্ডের আদিবাসীরা বন্যপ্রাণী এবং বন রক্ষার জন্য তাদের বহু প্রাচীন ঐতিহ্য শিকার করা ছেড়ে দিয়েছে। এর শুরু হয়েছিল ১৯৯৩ সালে। তখন একদল আদিবাসী পশু শিকার বন্ধ করার জন্য প্রচারনা চালাতে থাকে। আদিবাসীদের এমন উদ্যোগের ধারাবাহিকতায় আমাজন বনের মুরা’রা আগুন নিয়ন্ত্রণের যে উদ্যোগ নিয়েছে, বিশ্ববাসী অভিনন্দন জানায়। পশু শিকার, বনে আগুন বা বন কেটে নয় বরং বন রক্ষা করেই বেঁচে থাকা যায় যুগ যুগান্তর এবং “আমাজন” রক্ষা পাক।

লেখক: প্রাবন্ধিক, গবেষক এবং সিইও ইউনাইটেড নেশনস জাপান এশিয়া কালচারাল এক্সচেঞ্জেস, বাংলাদেশ।

আরও দেখুন

বড়াইগ্রামে টিবিএস ক্রেতা সম্মেলন অনুষ্ঠিত

নিহস্ব প্রতিবেদক, বড়াইগ্রাম: নাটোরের বড়াইগ্রামে স্বনামধন্য মোটরসাইকেল কোম্পানি টিভিএস অটো বাংলাদেশ এর ক্রেতা সম্মেলন অনুষ্ঠিত …